সত্যসন্ধান : মুসা ইব্রাহীমের এভারেস্ট আরোহন

শেয়ালের কুমিরের ছানা দেখানোর মতো অবস্থা দেখা যাচ্ছে ফেসবুকে। একই জিনিস বারবার খন্ডনের পরেও ঘুরেফিরে আসছে। সমস্যা হচ্ছে আমরা বাঙালী, অন্যের কথায় চিলে কান নিয়ে গেছে বলে দৌড়াতে থাকি।

মুসা কি এভারেস্ট জয় করেছে? আমার মতো সারা পৃথিবীর অনেক মানুষও তা জানে না, কারন আমরা তখন তার সাথে ছিলাম না। কিন্তু সাথে না থাকা বা নিজের চোখে না দেখা মানে এই নয় যে সেটা সত্য নয়। কিন্তু কিভাবে সেটা প্রমান করা যায়?

প্রথমেই, ফেসবুক পোস্ট দেখে কিছু বিশ্বাস করবেন না, অন্ততপক্ষে যতোক্ষণ পর্যন্ত না সেই পোস্টে কোন বিশ্বাসযোগ্য রেফারেন্স আছে। তাই সত্য যাচাইয়ের প্রথম পর্ব হচ্ছে এমন একটা রেফারেন্স বা তথ্যসূত্র খুজে বের করা যেটা মুসা ইব্রাহীম দ্বারা প্রভাবিত নয় এবং অন্যান্য নির্ভরযোগ্য সূত্র এই তথ্যসূত্রকে বিশ্বাস করে।

মুসার ধারাভাষ্যে পাওয়া যায় যে এভারেস্ট থেকে নামার পথে সে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে এবং তখন অন্য এক অভিযাত্রী অক্সিজেন দিয়ে তাদেরকে উদ্ধার করে। তাই প্রথমেই খঁজে পাওয়া দরকার যে সেই মহামানবকে কোথাও পাওয়া যায় কি না। বেশ কিছু সার্চের পর ফলাফল পাওয়া গেলো গুগলে (scottish mountaineer saves bangladeshi journalist in everest), স্কটল্যান্ডের পত্রিকায় সেখানকার একজন বলেছে যে মুসাকে তারা পর্বতশীর্ষৈর ১৫০ মিটারের মধ্যে পেয়েছে। এটাতে প্রমাণ হয় না যে মুসা পর্বত আরোহন করেছে, কিন্তু এটা প্রমাণ করে যে মুসা পর্বতশীর্ষের কাছে গিয়ে অন্তত পৌছেছে।

এরপর খুঁজে দেখা দরকার যে কোন পর্বতশীর্ষে আরোহনের কোন তালিকা কোথাও আছে কি না। অফিসিয়াল লিস্ট দিয়ে সার্চ করলে বেশ কয়েকটি ওয়েবসাইটের তালিকা পাওয়া যায়। এর মধ্যে হিমালয়ান ডেটাবেজ বেশ কয়েকটি রিসার্চ পেপারে তথ্যসূত্র হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে। তাই তথ্যসূত্র হিসেবে এটাকে নির্ভরযোগ্য বলে গণ্য করা যায়। সেই ডেটাবেজে ২০১০ সালের স্প্রিং-এ মুসা ইব্রাহীমের নাম দেখা যাচ্ছে। এখন এটা শু্ধু একটা সূত্র, এবং এটার উপর নির্ভর করে থাকলে তো চলবে না। তাই আমাদের অন্ততপক্ষে আরেকটা তথ্যসূত্র দরকার যেখানে মুসার নাম তালিকায় অন্তর্ভূক্ত আছে।

আরো বেশ কিছু খোঁজ চালানোর পর 8000ers.com সাইটে (http://www.8000ers.com/cms/en/8000ers-mainmenu-205/52.html) আরেকটা লিস্ট পাওয়া গেলো (http://www.8000ers.com/cms/en/download.html?func=startdown&id=152)।

যারা চাঁদে সাইদীর মুখ দেখতে চান, তারা তাই দেখতে পান। কিন্তু যারা যুক্তবাদী তারা ব্যাপারটা একটু খতিয়ে দেখেন। তাই চিলে কান নিয়ে গেছে ভেবে চিলের পিছে ছুটে লাভ নেই, হাতটা কানের কাছে নিয়ে আগে দেখা দরকার যে কানটা আসলেই চিলে নিয়েছে কিনা।

তারপরেও যাদের সন্দেহ আছে, তাদের জন্য বলছি, যদি আপনাদের কাছে প্রমাণ থাকে, তাহলে নেপালের কর্তৃপক্ষের হাতে সেটা পৌছে দিন। গত বছর দুইজন ভারতীয় এভারেস্টে না উঠেও দাবি করেছিলেন যে তারা এভারেস্ট জয় করেছেন, কিন্তু পরে যখন প্রমাণিত হয়েছে তারা এভারেস্টের চুড়ায় উঠেননি, তখন তাদেরকে ১০ বছরের জন্য এভারেস্ট থেকে নিষিদ্ধ ঘোষিত করা হয়েছে। তাই গুজব না ছড়িয়ে যদি প্রমাণ থাকে তাহলে একটা সত্যকে প্রতিষ্ঠিত করুন। আর যদি তা না থাকে, তাহলে দয়া করে সত্যকে বিকৃত করবেন না, সবার প্রতি বিনীত অনুরোধ রইলো।

References: